বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন

প্রতিনিধি আবশ্যক :
বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা জয় বাংলা নিউজ ডট কম ( www.joibanglanews.com)এর জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা/থানা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহী প্রার্থীদের পাসপোর্ট সাইজের ১ কপি ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি, অভিজ্ঞতা ( যদি থাকে) উল্লেখ পূর্বক জীবন বৃত্তান্ত এবং মোবাইল নাম্বার সহ ইমেইলে ( joibanglanews@gmail.com ) আবেদন করতে হবে।
শিরোনাম :
যশোরের জেলা প্রশাসকের কাছে চিকিৎসা সামগ্রী প্রদান যশোরে দরিদ্র অসহায় মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ যশোরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ টিকা দিতে আগ্রহ বাড়ছে রেজিষ্ট্রেশন করে মেসেজ না পেয়ে নারীপুরুষ স্বাস্থ্য বিভাগে ঘুরপাক খাচ্ছে  যশোর সদরে  মারপিট ও টাকা কেড়ে নেওয়ার অভিযোগে মামলা যশোরে  ইয়াবা,গাঁজা উদ্ধার গ্রেফতার-৩ যশোরে পুকুরে ডুবে ১০ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীর মৃত্যু জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণই বাংলাদেশের উন্নতি…প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঝিনাইদহের  কোটচাঁদপুর সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃতু জাপান থেকে ৬ লাখ ১৬ হাজার টিকা ঢাকায় পৌঁছেছে দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ২৩৫ জনের মৃত্যু
যেভাবে নিবেন শিশুর দাঁতের যত্ন

যেভাবে নিবেন শিশুর দাঁতের যত্ন

বিজ্ঞাপন

জয় ডেক্স : শিশুরা সাধারণত ক্যান্ডি, টফি, পেস্ট্রি এবং মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি পছন্দ করে। এই খাবারগুলো বাচ্চাদের দাঁতের নানা সমস্যা সৃষ্টি করে। প্রথম অবস্থায় এসব সমস্যার প্রতি খেয়াল না করলে পরে এগুলো জাঁকিয়ে বসে। তখন বার বার যেতে হয় ডেন্টিসের কাছে। তাতে যেমন যায় পয়সা, তেমনি কষ্ট পায় শিশু। তবে বাচ্চার দাঁতের যত্ন শুরু থেকে যদি নেওয়া যায় তাহলে ক্যাভিটি ও দন্তক্ষয়ের মতো রোগ থেকে দূরে রাখা যাবে।

দন্ত চিকিৎসকদের মতে, বাচ্চার দুধের দাঁত থেকেই যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। কারণ দাঁত ঠিক মতো গড়ে না উঠলে দেখতে খারাপ লাগা, খাবার চিবোনো কিংবা দাঁতের গড়নের সমস্যা তো হয়ই। অনেক সময় কথা বলাতেও সমস্যা তৈরি হয়। বাচ্চার দাঁতের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর হলো অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবার। তাই বাজারচলতি প্যাকেটজাত ফ্রুট জুস না খাইয়ে, ফল কিনে তার রস খাওয়াতে পারেন। ছোট্ট বাচ্চার ক্ষেত্রে হজমের সমস্যা এড়াতে সেই ফলের রসের সঙ্গে পানি মিশিয়ে নিতে পারেন।

এবার জেনে নিন শিশুর দাঁতের যত্ন যেভাবে নিবেন…

* দেড়-দু’বছর বয়স থেকে ব্রাশ করা শুরু করতে পারেন। বয়স বাড়ার সঙ্গেই দিনে দু’বার ব্রাশিংয়ের অভ্যেস জরুরি। কোন বাচ্চা যদি চকলেট বা গ্রানোলা বার খায়, তবে তা খাওয়ার পরে ভাল করে কুলকুচি করে মুখ ধুয়ে নিতে হবে।

* একটু বড় হলে সন্তানকেই বাছতে দিন নিজের টুথব্রাশ। নানা ডিজাইনের পাশাপাশি টুথব্রাশের ভাল-মন্দও গল্পের ছলে বুঝিয়ে দিন তাকে। তাতে ব্রাশের প্রতি তার আগ্রহ সৃষ্টি হবে।

* অন্তত আট বছর অবধি সন্তানের ব্রাশিং হোক আপনার সামনেই। ব্রাশিং মানে শুধুই এ-পাশে, ও-পাশে ব্রাশ বোলানো নয়। সন্তানের সঙ্গে ব্রাশ করুন, শেখান ব্রাশিংয়ের নিয়ম-কানুন। কারণ বাচ্চারা দেখে দেখে শেখে।

* শিশুর দাঁতের এনামেলের আবরণ পাতলা হয়। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ফ্লুরাইড টুথপেস্ট ব্যবহার করাতে পারেন। ফ্লুরাইড দাঁতকে শক্ত ও মজবুত করে তোলে।

* খাওয়ার সময়ে টিভি-মোবাইলে চোখ না রেখে সকলে মিলে একসঙ্গে বসে খাওয়ার অভ্যেস করুন। আর সন্তানকে ভাল করে চিবিয়ে খাওয়ায় অভ্যস্ত করান ছোট থেকেই। তাতে দাঁত মজবুত হবে।

* দাঁতের সেটিং এলোমেলো বা উঁচু-নিচু হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেটিং করাতে পারেন।

এভাবে ছোট থাকতে বাচ্চার দাঁতের যত্ন নিলে সবল হবে দাঁতের মাঁড়ি এবং দাঁতের সেটিং হবে সুন্দর।

 

 

 

 

 

সুত্র:সকালের সময়

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »