মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৭:১৮ অপরাহ্ন

প্রতিনিধি আবশ্যক :
বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা জয় বাংলা নিউজ ডট কম ( www.joibanglanews.com)এর জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা/থানা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহী প্রার্থীদের পাসপোর্ট সাইজের ১ কপি ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি, অভিজ্ঞতা ( যদি থাকে) উল্লেখ পূর্বক জীবন বৃত্তান্ত এবং মোবাইল নাম্বার সহ ইমেইলে ( joibanglanews@gmail.com ) আবেদন করতে হবে।
যশোরে ৮৩ হাজার ৫০ শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাবেন

যশোরে ৮৩ হাজার ৫০ শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাবেন

জয় বাংলা নিউজ প্রতিবেদক:

২০২১-২০২২ অর্থবছরের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি এবং দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য সহায়তায় সারাদেশে ৫০ লাখ ৩৬ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী পাচ্ছেন ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা। এর আওতায় যশোর জেলায় রয়েছে ৮৩ হাজার ৫০ জন শিক্ষার্থী। ইতোমধ্যে জেলার বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির আবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে শিক্ষা অফিস কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে ২০২১-২০২২ অর্থবছরের ২০২২ খ্রিষ্টাব্দের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি এবং দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য সহায়তা বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, শিক্ষার্থীরা শিগগিরই উপবৃত্তির টাকা পাচ্ছেন।
যশোর জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট থেকে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা পাবেন উপবৃত্তি ও ফি। এর মধ্যে ষষ্ঠ, সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী পাবেন ১ হাজার ২০০ টাকা, অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী পাবেন ১ হাজার ৫০০ টাকা, নবম ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা পাবেন ১ হাজার ৮০০ টাকা, একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী পাবেন ৬ হাজার ৩০০ টাকা।
সূত্র আরো জানায়, উপবৃত্তি পেতে শিক্ষার্থীরা স্ব-স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আবেদন করেছেন। এটা যাচাইবাছাই করার পর উপবৃত্তি দেয়া হবে। যশোর জেলার ৮৩ হাজার ৫০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে সদরে ১৮ হাজার ৪২০ জন শিক্ষার্থী, মণিরামপুরে ২০ হাজার শিক্ষার্থী, শার্শায় ১২ হাজার ৬৯১ জন শিক্ষার্থী, বাঘারপাড়ায় ৬ হাজার ৭৫৮ জন শিক্ষার্থী, অভয়নগরে ৪ হাজার ৫৭০ জন শিক্ষার্থী, কেশবপুরে ৫ হাজার ৪৬২ শিক্ষার্থী, চৌগাছায় ৫ হাজার ২৭১ জন শিক্ষার্থী, ঝিকরগাছায় সাড়ে ৮ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এ কে এম গোলাম আযম গণমাধ্যমকে বলেন, শিক্ষা বিস্তারের লক্ষে সরকার নানা ধরনের পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছে। সেগুলোর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি দেয়ার কার্যক্রম অন্যতম। এটা দিলে টাকার অভাবে কোন শিক্ষার্থীর লেখাপড়া বন্ধ হবে না। শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার সংখ্যা কমবে। বাড়বে শিক্ষা বিস্তারের হার।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »