মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৭:১৭ অপরাহ্ন

প্রতিনিধি আবশ্যক :
বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা জয় বাংলা নিউজ ডট কম ( www.joibanglanews.com)এর জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা/থানা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহী প্রার্থীদের পাসপোর্ট সাইজের ১ কপি ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি, অভিজ্ঞতা ( যদি থাকে) উল্লেখ পূর্বক জীবন বৃত্তান্ত এবং মোবাইল নাম্বার সহ ইমেইলে ( joibanglanews@gmail.com ) আবেদন করতে হবে।
যেসব লক্ষণে বুঝবেন ক্যালসিয়ামের ঘাটতি

যেসব লক্ষণে বুঝবেন ক্যালসিয়ামের ঘাটতি

ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দেখা দেয় অনেকের শরীরেই। তবে তা টের পান না বেশিরভাগ মানুষই। ক্যালসিয়াম একটি গুরুত্বপূর্ণ খনিজ। যা হাড় ও দাঁতের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। তাই শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব দেখা দিলে কঠিন সব রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

ক্যালসিয়ামের ঘাটতি বা হাইপোক্যালসেমিয়া এমন একটি অবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তির শরীরে রক্তে ক্যালসিয়ামের মাত্রা অত্যধিক কম থাকে। ক্যালসিয়ামের অভাব অস্টিওপোরোসিস ও অস্টিওপেনিয়ার ঝুঁকিও দ্বিগুণ বাড়ায়।

ক্যালসিয়ামের ঘাটতি কেন হয়?

বেশ কয়েকটি কারণে শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। তার মধ্যে অন্যতম হলো দীর্ঘদিন ক্যালসিয়াম গ্রহণ না করা। এছাড়া বয়স ও জিনের কারণেও ক্যালসিয়ামের অভঅব হতে পারে।

আবার কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, খাদ্যে ভারসাম্যহীনতা, নারীদের হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণেও শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দেখা দিতে পারে।

শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতির লক্ষণ ও উপসর্গগুলো টের পেলে প্রাথমিকভাবে তা নির্ণয় করা সহজ। এতে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করলে এই সমস্যার সমাধান ঘটে।

না হলে কঠিন সব সমস্যা দেখা দিতে পারে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি হলে। এ কারণে সবারই জেনে রাখা উচিত ক্যালসিয়ামের ঘাটতির লক্ষণসমূহ-

চরম ক্লান্তি ও দুর্বলতা

ক্লান্তি বিভিন্ন রোগের প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে শরীরে ফুটে ওঠে। ক্যালসিয়ামের ঘাটতি হলেও চরম ক্লান্তি, অলসতা ও দুর্বলতা দেখা দিতে পারে। পাশাপাশি হালকা মাথাব্যথা ও মাথা ঘোরার অনুভূতি দেখা দিতে পারে।

ঘন ঘন পেশিতে ক্র্যাম্প

শরীরে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়ামের অভাব হলে হঠাৎ পেশিতে ক্র্যাম্প বা খিঁচুনির ব্যথা অনুভব করতে পারেন। পেশির খিঁচুনি ক্যালসিয়ামের অভাবের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। এটি ঘুমের সময়ও আঘাত হানতে পারে।

অস্টিওপেনিয়া ও অস্টিওপরোসিস

ক্যালসিয়ামের নিম্ন স্তরের অস্টিওপোরোসিসের মতো রোগও হতে পারে, যাকে ভঙ্গুর হাড়ও বলা হয়। অস্টিওপেনিয়া একটি হাড়ের অবস্থা, যা অস্টিওপোরোসিসের একটি হালকা রূপ। উভয় অবস্থাতেই হাড়ের খনিজ ঘনত্ব কমতে থাকে। যা হাড়কে দুর্বল করে দেয়।

ত্বকের সমস্যা ও ভঙ্গুর নখ

শুষ্ক, ফ্ল্যাকি ত্বক ও ভঙ্গুর নখ ক্যালসিয়ামের অভাবের লক্ষণ হতে পারে। যখন আপনার শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কম থাকে তখন ত্বক আরও শুষ্ক ও নিস্তেজ হয়ে যায়। এমনকি ত্বকে চুলকানির সৃষ্টি হতে পারে।

হাইপোক্যালসেমিয়া কখনো কখনো সোরিয়াসিস ও একজিমার ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এর পাশাপাশি নখ পাতলা, দুর্বল ও ভঙ্গুর হয়।

দাঁতের সমস্যা

ক্যালসিয়াম শুধু আমাদের হাড়ের স্বাস্থ্যই ভালো রাখে না, বরং এটি আমাদের দাঁতের জন্যও একটি গুরুত্বপূর্ণ খনিজ। দাঁতের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায় ক্যালসিয়াম। অন্যদিকে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দাঁতের ক্ষয় ও মাড়ির রোগ অন্যতম কারণ।

অনিয়মিত হৃদস্পন্দন

রক্তে ক্যালসিয়াম স্তর স্বাভাবিক থাকলে হৃদস্পন্দনও নিয়মিত থাকে। আসলে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি থাকরে হৃদযন্ত্রে অ্যারিথমিয়াস সৃষ্টি করতে পারে, যা কারও কারও জন্য প্রাণঘাতী হতে পারে। এতে হৃদস্পন্দন হঠাৎ বেড়ে বা কমে যেতে পারে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »