বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৫৩ অপরাহ্ন

গত ৪০ বছরে নারী অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো

গত ৪০ বছরে নারী অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো

ডেক্স: আমি যেহেতু পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় কাজ করছি এখানে আমি দেখতে পাচ্ছি বাংলাদেশের পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাসহ,ডেল্টা প্লান, রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে পরিকল্পনা কমিশনের, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ বেশ কিছু বৃহৎ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। যেখানে নারী, তরুণ প্রজন্ম,শিল্প ও কৃষিসহ প্রতিটি সেক্টরের উন্নয়নে ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে ।
আমি মনে করি গত ৪০ বছরে নারী অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো কিন্তু একটা বিষয়ে আমার দ্বিমত আছে যেমন বলতে পারি ১৯৫২`র মহান ভাষা আন্দোলনে মেয়েরা যেভাবে এগিয়ে এসেছিল বর্তমান সময়ে তা খুব বেশি লক্ষ্য করি না। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থার লক্ষ্যণ নাকি প্রতিক্রিয়াশীল একটি সমাজের প্রভাব বিষয়টি আমাদের ভেবে দেখতে হবে।
তবে অনেক ক্ষেত্রেই আমাদের নারীদের অগ্রগতি হয়েছে পুলিশ প্রশাসন, আমলা, আকাশপথ ও নৌপথসহ রাষ্ট্র পরিচালনায় নারীর পদচারণা বৃদ্ধি পেয়েছে। সুতরাং আমারা বলতে পারি নারীর ক্ষমতায় বৃদ্ধি পাচ্ছে ।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীর ক্ষমতায়নে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। আমাদের প্রশাসন ও জুডিশিয়াল সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে নারীদের পদচারণা ছিল না। ১৯৮২ সাল থেকে প্রশাসন ক্যাডারে নারীদের নিয়োগ প্রদান করা হয়।  পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালে ৪ জন মহিলাকে প্রথম জেলা প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন। প্রশাসনের পাশাপাশি সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর উচ্চ পর্যায়ে মেয়েদের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন। যা নারীর অগ্রগতিতে তাৎপর্যপূর্ণ।
তবে নারী অগ্রগতিকে আরো অগ্রসর হওয়া দরকার সে জন্য আমাদের নারী শিক্ষাক্ষেত্রে আরো বেশি নজর দিতে হবে। প্রান্তিক ও দুস্হ্য নারীদের স্বাবলম্বী করার ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সামাজিক নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন প্রকল্প ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গ্রহণ করেছেন।
মাতৃত্বকালীন ৬ মাস ছুটির পাশাপাশি গ্রামের প্রান্তিক মায়েদের উন্নত খাবারের জন্য ভাতা, বিধবা ভাতা,মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে ভাতা দিচ্ছি।একই সাথে বাংলাদেশের বিভিন্ন এনজিও সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছে। এনজিও মতো সরকারি ভাবে থানা নির্বাহী কর্মকর্তা বা অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিয়ে ছোট ছোট আরো প্রকল্প যদি নেওয়া যায় তাহলে নারী আরো অগ্রসর হবে। আসলে আমাদের তৃণমূল পর্যায়ের নারীদেরকে সবার আগে অগ্রাধিকার দিতে হবে তাহলেই আমরা একটা সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারব।
তবে আমাদের দেশে বিরাট একটা জনগোষ্ঠী  তরুণ প্রজন্ম রয়েছে সেই প্রজন্মকে সঠিকভাবে গড়ে তুলতে হবে। তাদের আত্ম কর্মসংস্থানের উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। তার জন্য ইতোমধ্যেই নানা ধরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে আর তা বাস্তবায়িত হলে আমি মনে করি বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়ে যাবে।

 

 

সুত্র:সকালের সময়

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »