বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:২১ অপরাহ্ন

সাফারি পার্কে দর্শণার্থীর সংখ্যা বাড়ছে

সাফারি পার্কে দর্শণার্থীর সংখ্যা বাড়ছে

করোনা মহামারী ও শীতের প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যেও গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে দর্শণার্থীর সংখ্যা বাড়ছে।

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দর্শণার্থীরা পার্কের প্রাণি বৈচিত্র উপভোগ করতে আসছেন। তবে শীতের উষ্ণ আবহাওয়ার কারণে পার্কের বিশেষ প্রাণিদের দেখা মিলছে না বলে জানিয়েছেন দর্শণার্থীদের কেউ কেউ।

শনিবার সকাল ১১টার দিকে পার্ক এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, টিকিট কাউন্টারে দর্শণার্থীদের ভীড়। পার্কের পক্ষ থেকে বাধ্য বাধকতা থাকায় সকল দর্শণার্থী মাস্ক পরিহিত পার্কে প্রবেশ করছেন। পার্কের মুল প্রবেশ দ্বার থেকেই জীবাণুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। কেউ সপরিবারে আবার কেউ বন্ধু-বান্ধব ও এলাকার লোকজন নিয়ে গাড়ী ভাড়া করে পার্কের প্রাণি বৈচিত্র পরিদর্শন করতে এসেছেন।

পাবনা জেলার হেমায়েতপুর থেকে পাবনা সরকারি বুলবুল কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী রনি খান ও পাবনা পলিটেকনিক কলেজের শিক্ষার্থী নাসিম উদ্দিনসহ ১৩ জন বন্ধু শুক্রবার ভোর চারটার দিকে ওরয়ানা হন। শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে তারা পার্কে এসে পৌঁছান। স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তারা পার্ক পরিদর্শন করেন। তারা জানান, করোনা মহামারীর মধ্যেও সাফারী পার্কে দর্শণার্থীদের অভাব নেই। প্রাণি বৈচিত্র পর্যবেক্ষণ করতে উৎসাহী মানুষকে মহামারি করোনা ও শীতের প্রভাব বাধা সৃষ্টি করতে পারেনি।

বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার খন্দকারটুলা গ্রামের ৫২ জনের একদল গ্রামবাসী বড় একটি বাসে পার্ক পরিদর্শন করতে আসেন। দর্শণার্থী জিয়াউর রহমান ও রাব্বি জানান, করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘদিন পার্ক এলাকা ছিল দর্শণার্থীশূণ্য। পার্কের ভেতরে গাছপালা, তরুলতা দেখে মনে হয়েছে তারা যেন নতুন করে জীবন ফিরে পেয়েছে। পশু পাখিগুলো দেখে মনে হয়েছে তারাও মানুষের বিচরণ থেকে কয়েকটি মাস আলাদা হয়ে যেন বনে ফিরে গিয়েছিল। সীমাবদ্ধ এলাকায় পশুপাখির বিচরণ থাকলেও প্রাণি বৈচিত্রে এর প্রভাব চোখে পড়েনি।

ইউনিক মেঘনা ঘাটের প্রকৌশলী মো. হুজাইফা বলেন, তিনি সপরিবারে ময়মনসিংহ থেকে ঢাকায় ফিরছিলেন। এসময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক পরিদর্শন করেন। জিরাফ, জেব্রা, ভল্লুকের দেখা মিললেও বিশেষ বেষ্টনীতে থাকা বাঘ, সিংহের দেখা পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, পার্কে প্রবেশের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য বিধি মানা হলেও বিশেষ বেষ্টনীতে গাড়ী চড়ার সময় সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না।

ট্যুরিস্ট পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) মো. শাহজাহান জানান, গত শুক্রবার ২ হাজারের বেশি দর্শণার্থী ছিল। পার্ক খোলে দেয়ার খবরটি বহুল প্রচার হলে দর্শণার্থী আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ শুক্রবারে দর্শণার্থী সংখ্যা আরও বেশি হবে। সন্ধ্যায় এর সঠিক হিসেব পাওয়া যাবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, করোনা মহামারীর কারণে পার্কটি লকডাউনের আওতায় ছিল। । চলতি নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে সরকারি নির্দেশে এটি খুলে দেয়া হয়েছে। এ মহামারিতে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি দর্শণার্থী আসছে। এ সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। সপ্তাহের মঙ্গলবার ছাড়া প্রতিদিন পার্ক খোলা রয়েছে। বিশেষ করে দিনের বেশিরভাগ সময় বাঘ সিংহ সুবিধাজনক স্থানে ঘুমিয়ে কাটায়। সে কারণে কোনো কোনো সময় এগুলো দর্শণার্থীদের চোখে পড়ে না।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »