শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন

প্রতিনিধি আবশ্যক :
বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা জয় বাংলা নিউজ ডট কম ( www.joibanglanews.com)এর জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা/থানা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহী প্রার্থীদের পাসপোর্ট সাইজের ১ কপি ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি, অভিজ্ঞতা ( যদি থাকে) উল্লেখ পূর্বক জীবন বৃত্তান্ত এবং মোবাইল নাম্বার সহ ইমেইলে ( joibanglanews@gmail.com ) আবেদন করতে হবে।
ঢাকার আবাসন মেলায় কবরের প্লটের আগাম বুকিং

ঢাকার আবাসন মেলায় কবরের প্লটের আগাম বুকিং

বিজ্ঞাপন

জয় ডেক্স: ঢাকায় যে আবাসন মেলা চলছে, সেখানে এই অভিনব ব্যবসায়িক উদ্যোগ নিয়ে হাজির হয়েছে একটি প্রতিষ্ঠান। গতকাল মেলার শেষ দিনে গিয়ে দেখা গেল, তাদের স্টলেও ভিড় করছেন অনেকে।এদের একজন শফিকুল ইসলাম। অন্যান্য স্টলে ঘুরে একটি স্টলের সামনে এসে দাঁড়ালেন। এমআইএস হোল্ডিংস লিমিটেড নামের প্রতিষ্ঠানটি মেলায় কবরের জন্য প্লটের বুকিং নিচ্ছে।শফিকুল ইসলাম স্টলের কর্মীদের কাছ থেকে বুঝে নিচ্ছিলেন প্রয়োজনীয় তথ্য।ইসমাইল হোসেন নামে একজন দর্শনার্থী বলছিলেন, ঢাকা শহরে কবরের স্থানের যে অপ্রতুলতা রয়েছে সে অনুযায়ী এই উদ্যোগটা তার কাছে ব্যতিক্রম মনে হয়েছে।”এই জিনিসটা ঢাকা শহরের জন্য ঠিক আছে। কারণ ঢাকা শহরে কবরস্থান দিনে দিনে একটা সংকটের দিকে চলে যাচ্ছে। একটা কবর দেয়ার পর হয়ত তিনমাস পর আবার সেখানে রিপ্লেস করা লাগছে। এখন এরা যদি সততার সাথে কবরগুলো মানুষকে বুঝিয়ে দিতে পারে তাহলে আমি মনে করি এটা খুব ভালো কাজ।”নিজের জন্য একটি কবরের প্লট বুকিং দিয়ে রাখা যায় কীনা, সেটা নিয়ে সত্যি সত্যি ভাবছেন ইসমাইল হোসেন।”চিন্তা-ভাবনা করবো, যদি দেখি তাদের কাগজপত্র, সরকারের অনুমোদন সব ঠিক আছে তাহলে আমি চিন্তা করবো এখানে একটা জায়গা কেনার।”

ঢাকায় মরদেহ কবর দেয়ার জায়গার এত অভাব কেন?

সাভারের কবরস্থানের চুরি হওয়া লাশ যাচ্ছে কোথায়

এম আই এস হোল্ডিং লিমিটেডের এই প্রকল্পটি ঢাকার অদূরে পূর্বাচলে। প্রতিষ্ঠানটির একজন কর্মকর্তা আফরোজা সুলতানা বলছিলেন কেন তারা প্লট বা ফ্লাটের পরিবর্তে কবরস্থান তৈরির উদ্যোগ নিলেন?

“এই খবরটা জানার পরে অনেকে বিতর্ক সৃষ্টি করার চেষ্টা করে। বলে কবর নিয়েও ব্যবসা করে! কিন্তু চিন্তা করলে দেখা যায় – যখন বাংলাদেশে মিনারেল ওয়াটার এসেছিল তখন মানুষ বলতো, পানি আবার কিনে খেতে হবে! কিন্তু সেই পানি এখন আমাদের সব সময় লাগে। তেমনি ভাবে এই বিষয় আমাদের জীবনের অংশ। আসলে নতুনত্বকে গ্রহণ করে নেয়ার মানসিকতা তৈরি করতে হবে।”ঢাকায় ৮টি সরকারি কবরস্থান রয়েছে। ৫, ১০, ১৫ ও ২৫ বছর, এরকম নানা মেয়াদে সেখানে জায়গা বরাদ্দ আছে খুব অল্প কিছু কবরের। যার জন্য দেড় থেকে সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে হয়।কিন্তু সেটি যারা পারছেন না তাদের জন্যেই অস্থায়ী কবর। আর সেই সংখ্যাটিই বেশি। দুবছর পর পর সেসব কবরে যোগ করা হয় আরেকটি মরদেহ। তাই এখন এই স্থায়ী কবরস্থানকে ভালো ভাবে দেখছেন মেলায় আসা অনেকে।ঢাকার আজিমপুরের কবরস্থানটিতে ৩০ হাজারের মতো কবরের জায়গা হয়। বনানী কবরস্থানে রয়েছে ২২ হাজার কবরের জায়গা। প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা আফরোজা সুলতানা বলছিলেন তাদের এই মূহুর্তে রেডি কবরের প্লট রয়েছে দু্‌ই হাজার, তবে মেলায় দুশোটির মত বুকিং পেয়েছেন তারা।”আমাদের অনেক ভালো রেসপন্স আলহামদুলিল্লাহ। সবাই এটাকে ভালো বলছে। আমাদের ২০০টির মত বুকিং হয়েছে। আর এটা একদম নতুন। অনেকে জানে না। জানলে আস্তে আস্তে আমরা আরো ভালো রেসপন্স পাবো।”ঢাকা শহরের মানুষ যত বাড়ছে, সেই সঙ্গে বাড়ছে কবর দেয়ার জায়গার সংকট। এটাই কঠিন বাস্তবতা। তাই আপনজনের কবরের উপর অন্য কারো কবর যাতে না হয় সে কারণে অনেকে উৎসাহ প্রকাশ করেছেন স্থায়ী এই ব্যবস্থায়।.. সূত্র :বিবিসি বাংলা

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »