শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:১২ অপরাহ্ন

তাহিরপুরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক ৮

তাহিরপুরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক ৮

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে শরীফ নামে ১৩  বছর বয়সের এক কিশোরকে জোরপূর্বক মদ্যপান করিয়ে টিকটকসহ বিভিন্ন রকমের আপত্তিকর ভিডিও তৈরী করে সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করায় ৮ জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ।
উপজেলার বাণ্যিজিক কেন্দ্র বাদাঘাট এলাকায় শারীরিক প্রতিবন্ধী কিশোর শরীফকে নিয়ে টিকটকসহ বিভিন্ন রকমের আপত্তিকর ভিডিও তৈরী করে সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করার ঘটনায় ৮ জনকে আটক করা হয়েছে।
এঘটনায় রোববার রাতে আটক ৮ জনসহ মোট ১০ জনের বিরুদ্ধে তাহিরপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন নির্যাতিত কিশোরের বড় ভাই শামীম আহমেদ।
আটককৃত ব্যক্তিরা হলেন- উপজেলার ৫নং বাদাঘাট উত্তর ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামের শেখ আ. রহমানের ছেলে আলম শেখ (২৩), ও  একই রুমানের ছেলে তারেক (২২), নাজিম উদ্দিনের ছেলে দীপু (২২), বাচ্চু মিয়ার ছেলে রনি (১৭), বাদাঘাট গ্রামের খুরশিদ মিয়ার ছেলে আব্দুল্লাহ (১৬), ৪নং উত্তর বড়দল ইউনিয়নের মৃত আ. গফুরের ছেলে মোজাম্মেল হক (২২), হাবিবুর রহমান ছেলে সাগর (২১), দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের পাগলপুর গ্রামের হরমুজ আলীর ছেলে মনির মিয়া (১৯)।
রোববার রাতে আটককৃতদের এবং ভিকটিম শরীফকে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে প্রাথমিকভাবে ঘটনার সঙ্গে আটককৃতদের সম্পৃক্ততা থাকায় ভিকটিম শরীফের বড় ভাই শামীমের দায়ের করা মামলায় আটককৃত ব্যক্তিদের গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।
পুলিশ সুত্রে জানা যায়, জুলাইয়ের শেষের দিকে উপজেলার বাণ্যিজিক কেন্দ্র বাদাঘাট বাজারের সততা স্টোরের মোজাম্মেল হকের ফেসবুক আইডি থেকে প্রশাসন ও সাংবাদিকদের দৃষ্টি আকর্ষন করে কিশোর শরীফের ছবি ও একটি ভিডিও আপলোড করা হয়। ওই ভিডিওতে শরীফ জানায়, বাদাঘাট এলাকার কয়েক জন যুবক তাকে জোর পূর্বক মদ্যপান করিয়ে  বিভিন্ন রকমের টিকটক ভিডিও তৈরি করে তা ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করে।
বিষয়টি সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএমের নজরে আসলে উনার দিকনির্দেশনায় তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতিকুর রহমান ও বাদাঘাট ফাঁড়ি থানার ইনচার্জ এস.আই মাহমুদুল হাসান বিষয়টি গোপনে তদন্ত শুরু করেন। শারীরিক প্রতিবন্ধী কিশোর শরীফকে দিয়ে এমন আপত্তিকর ভিডিও তৈরী করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করায় সারা জেলা- উপজেলা জুড়ে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠে।
রোববার দুপুরে শরীফের দেয়া তথ‌্য অনুযায়ী ভিডিও ভাইরালের ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে ৮ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। পরে ওই ঘটনায় তাদের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় গ্রেফতার দেখানো হয়।
শরীফ উপজেলার ৫নং বাদাঘাট ইউনিয়নের ঢালারপাড় (লাউড়েরগড়) গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে। ৯ ভাই বোনের মধ্য শরীফ সপ্তম।
তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান জানিয়েছেন, ভিকটিমের বড় ভাই শামীম বাদী হয়ে আটককৃত ৮জনসহ মোট ১০ জনের বিরুদ্ধে তাহিরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেফতারকৃতদের আজ সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া পলাতক অন‌্য দুই আসামীকে গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা করে যাচ্ছে, পলাতকদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।
জয় বাংলা নিউজ/সস

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »