বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০২:২৫ অপরাহ্ন

প্রতিনিধি আবশ্যক :
বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা জয় বাংলা নিউজ ডট কম ( www.joibanglanews.com)এর জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা/থানা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহী প্রার্থীদের পাসপোর্ট সাইজের ১ কপি ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি, অভিজ্ঞতা ( যদি থাকে) উল্লেখ পূর্বক জীবন বৃত্তান্ত এবং মোবাইল নাম্বার সহ ইমেইলে ( joibanglanews@gmail.com ) আবেদন করতে হবে।
শিরোনাম :
পঞ্চম উষ্ণতম বছর ২০১৯

পঞ্চম উষ্ণতম বছর ২০১৯

বিজ্ঞাপন

 জয় ডেক্স: বিশ্বের তাপমাত্রা ২০১৮ সালে বেড়েছে ১ ডিগ্রি, চলতি বছরও উষ্ণ থাকবে বলে জানিয়েছে নাসা। শিল্প বিপ্লবের পর উনিশ শতকে বিশ্বের তাপমাত্রা গড়ে যতটা বেড়েছিল, তার চেয়েও তাপমাত্রা অন্তত ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস (বা, ১.৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট) বেড়েছে, শুধুই গত বছরে।আগামী ৫ বছরের মধ্যে যে কোনো একটি বছরে বিশ্বের গড় তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস (বা, ২.৭ ডিগ্রি ফারেনহাইট) হবে উষ্ণায়নের দৌলতে।উষ্ণায়নের সমস্যাকে যিনি গুরুত্বই দিতে চান না, সেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ওই তথ্য দিয়ে একই সঙ্গে ভুল প্রমাণ করল জাতিসংঘ, মার্কিন মহাকাশ সংস্থা ‘নাসা’ ও সমুদ্র গবেষণা সংস্থা ‘নোয়া’।

তিনটি সংস্থাই বুধবার আলাদা ভাবে জানাল, ভয়ঙ্কর বিপদে পড়ে গিয়েছে সভ্যতা। তার সামনে এখন শুধুই জীবন-মরনের প্রশ্ন। আর বেঁচে থাকার সেই সম্ভাবনাটাও ঝুলছে শুধুই একটা সুতোর উপর! যার এক ও একমাত্র কারণ, আমরাই দ্রুত বিষিয়ে দিচ্ছি প্রকৃতি ও পরিবেশকে। জেনেশুনেই বিপন্ন করে তুলছি আমাদের অস্তিত্ব। অস্বীকার করছি বেঁচে থাকার অধিকারকেজাতিসংঘের অধীনস্থ ওয়ার্ল্ড মেটিরিওলজিক্যাল অর্গানাইজেশন (ডব্লিউএমও) এর সেক্রেটারি-জেনারেল পেট্টেরি টালাস বলেছেন, ‘গত ২২ বছরের মধ্যে ২০টি বছরই ছিল গত এক শতাব্দীতে উষ্ণতম। বুধবারই নাসা এবং নোয়া ওয়াশিংটনে এক যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছে, ২০০১ থেকে শুরু করে একুশ শতকের প্রথম দু’টি দশকে ২০১৮ সালটি ছিল চতুর্থ উষ্ণতম বছর। ২০১৯ সালটি হবে পঞ্চম উষ্ণতম। আর এই দু’টি দশকে সবচেয়ে গরমের বছরটি ছিল ২০১৬। শিল্প বিপ্লবের পর এতটা উষ্ণ হয়নি আর কোনও বছর। গত দেড়শো বছরের মধ্যে ২০১৬ সালটির উষ্ণতম হওয়ার প্রধান কারণ অবশ্য প্রশান্ত মহাসাগরের ‘এল নিনো’।

ডব্লিউএমও, নাসা এবং নোয়া, এই তিনটি সংস্থাই জানিয়েছে, ২০১৫ সালে প্যারিস জলবায়ু সম্মেলনে বিশ্বের ১৯০টি দেশ শিল্প বিপ্লবের সময়ের চেয়ে বিশ্বের গড় তাপমাত্রা-বৃদ্ধিকে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে রাখার অঙ্গীকার করলেও, এই শতাব্দীর শেষে পৌঁছে তা আদৌ সম্ভব হবে না। তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসেরও বেশি বেড়ে যাবে।ডব্লিউএমও, নাসা এবং নোয়া, এই তিনটি সংস্থাই জানিয়েছে, বন্যা, দাবানল, খরার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘটনার সংখ্যা বেড়েছে। মরসুমগুলির স্বাভাবিক মেয়াদের রদবদল ঘটেছে। বৃষ্টিপাতের পরিমাণ অস্বাভাবিক ভাবে কমে গিয়েছে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে। তার ফলে, বিশ্বজুড়েই চাষবাস, সেচ দারুণ ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।নাসা ও নোয়া জানাচ্ছে, গা পোড়ানো গরম দেখেছে অস্ট্রেলিয়া, জানুয়ারিতে। গত দেড়শো বছরে এতটা গরম পড়তে দেখা যায়নি অস্ট্রেলিয়ায়। সুমেরুর আবহাওয়া (পোলার ভর্টেক্স) কিছু দিনের জন্য গ্রাস করেছিল মধ্য ও পশ্চিম আমেরিকার একটি বিশাল অংশকে। জানুয়ারির শেষ থেকে ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকটা পর্যন্ত।

সুত্র:সকালের সময়

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Translate »