রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৩:২৪ অপরাহ্ন

করনীয়:
করোনা প্রতিরোধে সচেতন হই। ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত ধুই। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হই।
শিরোনাম :
ইবি শিক্ষার্থী সোহাগের করোনা পজেটিভ যশোর জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেনে নারীর মৃৃৃৃত্যু  ফুলবাড়ীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু ১, স্বাস্থ্য বিধি মেনে দাফন সম্পন্ন  জিয়াউর রহমানের শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে যশোরে স্বেচ্ছাসেবক দলের খাবার বিতরণ যশোর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মুহাদ্দিস আবু সাঈদ আর নেই যশোরে শিক্ষার্থীদের ২৫% ম্যাচ ভাড়া মওকুফের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে  যশোরে শিশুসহ ৪জন নতুন করোনা শনাক্ত লিবিয়ায় নিহত রকির যশোরের বাড়িতে চলছে হৃদয়বিদারক আহাজারি যশোরে করোনার চিকিৎসার নামে প্রতারণা করায় তিনজনকে জরিমানা দিনাজপুরে নতুন করে ১১ জন করোনা শনাক্ত         
উদ্দীপ্ত তরুণ তৈরি করলো বিনামূল্যে বাজার

উদ্দীপ্ত তরুণ তৈরি করলো বিনামূল্যে বাজার

জয় ডেস্ক : করোনা মহামারি মোকাবেলায় মেঘনার তরুণ ও ছাত্রদের নিয়ে গঠিত স্বেচ্ছাসেবী টিম, ‘উদ্দীপ্ত তরুণ’। তারা প্রথম থেকেই নিজেদের সর্বোচ্চ শ্রমটুকু দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এই উদ্দীপ্ত তরুণ। মানুষকে সচেতন করার লক্ষে তারা বিভিন্ন টিম বিভিন্ন ভাবে কাজ করে আসছে। তাদের প্রধান কাজ হচ্ছে-সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং এ মানুষকে উদ্ভুদ্ধ করা, কোয়ারেন্টাইন যথাযথ ভাবে পালন করার জন্য সচেতনতা তৈরী করা, করোনা মোকাবেলায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধী মেনে চলার জন্য সবাইকে সচেতন করা, পুরো মেঘনায় প্রশাসনের সহায়তায় জীবানুনাশক স্প্রে করা, কিছু মসজিদ গুলোতে সাবান, সচেতনতা মূলক পোস্টার, ফেস্টুন এর মাধ্যমে মানুষকে সর্বোচ্চ সচেতন করা, তাছাড়াও, উদ্দীপ্ত তরুণ দেশের ক্রান্তিকালীন যেকোনো বিপর্যয়ে সামর্থ্যের সর্বোচ্চ টুকু উজাড় করে দিতে বদ্ধ পরিকর।
আবার সবার হাতে যদি ত্রাণ না পৌছে সেই কথা চিন্তা করে তারা এবার তৈরি করলো বিনা মূল্যেও বাজার। দূর্যোগের সময়টাতেই খাবারের সম-বন্টন খুব দরকার নিম্ন মধ্যবিত্ত কর্মহীন গরীব অসহায় মানুষদের জন্য এভাবেই রেখে দেওয়া হয় বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সহ নানান রকম শাক-সবজি। এলাকাবাসী সকাল দশটার মাঝেই যার যেমন দরকার তেমন পরিমাণ এখান থেকে বিনামূল্যে নিয়ে যায়। তবে কেউ প্রয়োজনের চেয়ে বেশি নেননি, সম্মান জানিয়েছেন অন্যের প্রয়োজনটুকুকে। এতে যদি ভুক্তভোগী মানুষগুলোর সামান্য উপকারও হয় তবে আমাদের এই পরিশ্রম সার্থক। স্বেচ্ছাসেবকরা নির্ঘুম চোখে মানুষকে ব্যাখ্যা করে সহমর্মিতার প্রয়োজনটুকু। তাদের এই মহৎ কাজ সম্পর্কে কথা বলা উদ্দীপ্ত তরুনের উদ্যোক্তা মো. রিসালাতের সাথে। রিসালাত ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র। সে জানায়, সমাজের বিত্তবান মানুষেরা যদি অর্থায়নে সহযোগিতা করেন, আমরা সেগুলো নিয়ে যাবো নিম্ন মধ্যবিত্ত, কর্মহীন, গরীব অসহায় মানুষগুলোর কাছে। ভিন্ন ভিন্ন ক্যাম্পেইনে ভিন্ন ভিন্ন মানুষকে আমরা সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করছি। আসলে আমরা সবাই শিক্ষার্থী তাই হয়তো আমরা আমাদের সাহায্যের পরিসর টা বড় করতে পারছিনা। তবে সহায়তা পেলে আমরা এর পরিসর আরো বড় করবো। প্রত্যেকটা এলাকায় তৈরি করবো এমন বিনামূল্যের বাজার। আপনি হয়তো অবগত আছেন মেঘনার সকল স্তরের লোক আমাদের এই কাজকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।
উদ্দীপ্ত তরুনের আরেক সদস্য তপু রায় সকালের সময়কে বলেন, দেখেন এই মহামারীতে সকলেই ত্রাণ হিসেবে চাল, ডাল, তেল ইত্যাদি বিতরণ করে কিন্তু এই খাবার তো আর শিশুরা খেতে পারেনা। শুধু বড়দের কথা চিন্তা করলে তো হবেনা আমাদের সমাজের অনেক শিশু রয়েছে তাদের কথাও আমাদের চিন্তা করতে হবে। আর এই কথা চিন্তা করে আমাদের স্বেচ্ছাসেবী টিম এবার প্রত্যেকটা শিশু কে দুধ দেওয়ার কথা চিন্ত করছি। তাই সমাজের সকল বিত্তবানদের কাছে আমাদের আকুল আবেদন দয়া করে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

জয় বাংলা নিউজ/সস

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved  2019 Joibanglanews.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com